সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩
এবার শাহবাগে পুলিশ ও নিজের গায়ে আগুন দেয়ার চেষ্টা চা বিক্রেতার

এবার শাহবাগে পুলিশ ও নিজের গায়ে আগুন দেয়ার চেষ্টা চা বিক্রেতার

আমার সুরমা ডটকম : এবার পুলিশের শরীরসহ নিজের গায়ে কেরোসিন নিক্ষেপ করে আগুন ধরানোর চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে কিরণ নামের একজন চা দোকানির বিরুদ্ধে। আজ বুধবার দুপুরে শাহবাগস্থ ছবির হাটের প্রবেশপথে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।
অমর একুশে বইমেলার নিরাপত্তাজনিত কারণে গোটা শাহবাগ এলাকার সব জায়গাতেই সব ধরণের দোকানপাট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। কিন্তু আজ বুধবার দুপুরে কিরণ নামের এক চা বিক্রেতা দোকান খুলে চা বিক্রি শুরু করে। এসময় সেখানে কর্তব্যরত একজন পুলিশ কনস্টেবল তাতে বাধা দেন। এসময় কিরণ উত্তেজিত হয়ে পুলিশ সদস্যের সাথে বাকবিত-ায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে কর্তব্যপালনে বইমেলার দিকে মোটর সাইকেল যোগে যাচ্চিলেন শাহবাগ থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তা।
তিনি উত্তপ্ত পরিস্থিতি দেখে কিরণকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু কিরণ তার কথায় না থেমেই তার সঙ্গেও ঔদ্ধত্তমূলক আচরণ করে। এরপর ওই পুলিশ কর্মকর্তা প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞার কথা তাকে শোনান। আর তখনই কিরণ উত্তেজিত হয়ে তার কাছে থাকা কেরোসিনের পাত্র খুলে নিজের গায়ে ও পুলিশের শরীরে ছড়িয়ে দিয়ে আগুন ধরানোর চেষ্টা করেন। তখন পুলিশ সদস্যরা তাকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে শাহবাগ থানার ডিউটি অফিসার বলেন, এ ধরণের ঘটনা শাহবাগ এলাকায় ঘটেনি। পরে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুবকর সিদ্দিক এ সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি শীর্ষ নিউজকে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে তিনি বলেন, ফুটপাতের সকল দোকান উচ্ছেদ করা হয়েছে। আর নির্ধারিত বইয়ের দোকান ছাড়া ওই এলাকায় কোন বইয়ের দোকানও বসতে দেওয়া হয়নি। আর চা বিক্রেতা কিরণ আসলে সুস্থ মানসিকতার নন বলে জানতে পেরেছি। গত কয়েকদিন জোর করে দোকান খোলার দায়ে তাকে দফায় দফায় থানায় এনে রাখা হয়। তার পরও সে বলে আমি দোকান বসাবোই। এরপর সে হুমকি দিয়েছিল যে গায়ে আগুন দেব। কিন্তু সে আগুন দেয়নি।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: