শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১২:১৮ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩

গোপনে ছবি তুললে ১৪ বছরের জেল

আমার সুরমা ডটকমকোনও সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের যেকোনও তথ্য উপাত্ত যদি গোপনে ধারণ করা হয়, তবে ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮’ অনুযায়ী তা গুপ্তচরবৃত্তি হিসেবে বিবেচনা করা হবে। সেক্ষেত্রে সরকারি অফিসে ঘুষ লেনদেনের কোনও চিত্র, কিংবা কোনও বড় ধরনের দুর্নীতির ফাইলের ছবি নেওয়া বা ভিডিও করা গুপ্তচরবৃত্তি হিসেবে বিবেচিত হবে কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮’ প্রকাশের পর এটি তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার নিয়ন্ত্রণের চেয়েও কঠোর বলে মন্তব্য করার পাশাপাশি বিশ্লেষকরা বলছেন- গুপ্তচরবৃত্তি সম্পর্কিত ৩২ নম্বর ধারাটি রাষ্ট্র পরিচালনায় স্বচ্ছতাবিরোধী ধারা। আর তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মনে করছেন, এই ধারা প্রয়োজন আছে। গোপনীয়তা লঙ্ঘন গ্রহণযোগ্য নয়।

নতুন আইনের ৩২ ধারায় বলা হয়েছে, ‘সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে কেউ যদি বেআইনিভাবে প্রবেশ করে কোনও ধরনের তথ্য-উপাত্ত, যেকোনও ধরনের ইলেকট্রনিক্স যন্ত্রপাতি দিয়ে গোপনে রেকর্ড করে, তাহলে সেটা গুপ্তচরবৃত্তির অপরাধ হবে।’ আইনটিতে এ অপরাধের শাস্তি হিসেবে ১৪ বছরের জেল ও ২০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

এই ধারার বর্ণনায় যা আছে তাতে আদৌ গুপ্তচরবৃত্তি হয় কিনা প্রশ্নে ব্যারিস্টার তানজীব উল আলম বলেন, ‘সংজ্ঞায়িত যেহেতু করেছে, সেহেতু হবে।’ তিনি বলেন, ‘এটা একটা ঢালাও বিধান। এর ফলে মানুষের যে তথ্য অধিকার, সেটা খর্ব হবে। তথ্য অধিকার মত প্রকাশের স্বাধীনতার সঙ্গে সম্পৃক্ত। এই বিধানটি সেদিক থেকে সংবিধানবিরোধীও বটে।’

উদাহরণ দিতে গিয়ে ব্যারিস্টার তানজীব বলেন, ‘আমি যদি ফাইলের ওপরের নোটটির ছবি তুলি, যেখানে বলা আছে কোনও একটি অন্যায় সংঘটিত হয়েছে। সেটা তো জনগণের জানার অধিকার আছে। সেটি কিভাবে গুপ্তচরবৃত্তি হয়। সেটা যদি গুপ্তচরবৃত্তি হয়, তাহলে জনগণতো কখনও জানতে পারবে না কী ঘটে চলেছে। আসলে এটা রাষ্ট্র পরিচালনায় স্বচ্ছতাবিরোধী আইন।’

এদিকে, ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘কোনও কাজ গোপনে আপনি করবেন কেন? সেটা তো গ্রহণযোগ্য না।’ রাষ্ট্রীয় কাজের স্বচ্ছতার জন্য কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটা প্রয়োজন হয় কিনা প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এটা কখনও লঙ্ঘন করতে পারেন না। রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা নষ্ট করতে পারেন না। সাংবাদিকদের স্বাধীনতা আছে, কিন্তু শর্তাধীন। আপনি কি চাইলেই কারও বাড়িতে জোর করে প্রবেশ করতে পারবেন? কারও বাসায় কেউ অনুমতি না নিয়ে ছবি তুলতে পারেন?’

মন্ত্রীর এই প্রশ্নের বিপরীতে কর্মকর্তার অনুমতি নিয়ে ছবি তুললে তিনি যদি অস্বীকার করেন, তখন সাংবাদিক কী করবে প্রশ্ন করা হলে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘সেটা আপনার পরিস্থিতির বিষয়। আপনি অনুমতি নিয়ে যখনই করবেন, তখন সেটা গোপনীয় থাকে না।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: