রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩
বিএনপি’র ৩৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

বিএনপি’র ৩৭ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

file (56)

আমার সুরমা ডটকম : বাংলাদেশের দুই প্রধান দলের একটি বিএনপির প্রতিষ্ঠার ৩৭ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে আজ। ১৯৭৮ সালের ১ সেপ্টেম্বর তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বিভিন্ন রাজনৈতিক মত ও পথের অনুসারীদের এক মঞ্চে এনে বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেন। তবে, দলটির ৩৭ বছরের ইতিহাসে প্রায় ৩৩ বছর ধরে সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন বর্তমান চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মাজারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও ফাতেহা পাঠ করবেন বিএনপি চেয়ারপারসন। একই দিন বিকেল ৩টায় কাকরাইলস্থ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে বিএনপির উদ্যোগে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে দলের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মী-সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ীদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন খালেদা জিয়া।
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর সেনাবাহিনীতে অভ্যুত্থান-পাল্টা অভ্যুত্থানের এক পটভূমিতে ৭ নভেম্বর ক্ষমতার কেন্দ্রে চলে আসেন জিয়াউর রহমান। প্রথমে তিনি ১৯ দফা কর্মসূচির ভিত্তিতে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক দল (জাগদল) নামে বিভিন্ন দল ও গোষ্ঠীর একটি সমন্বিত প্ল্যাটফর্ম প্রতিষ্ঠা করেন, যা পরে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বা বিএনপিতে রূপান্তরিত হয়।

বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ৪৪ বছরে বেশিবার নির্বাচনে জিতে সবচেয়ে বেশি সময় রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিল এ দলটি।
রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও বিএনপির নীতিনির্ধারকদের মতে, জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার সময় দেশের অর্থনীতিসহ সব ক্ষেত্রে ছিল বিশৃঙ্খলা। রাজনীতিতেও এক ধরনের শূন্যতা বিরাজ করছিল। বিশেষ করে স্বাধীনতা-উত্তর দেশের আইনশৃঙ্খলার অবনতি, গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো ধ্বংস, দুর্ভিক্ষ, সংবাদপত্রের কণ্ঠরোধ, একদলীয় বাকশাল প্রতিষ্ঠার প্রেক্ষাপটে জাতীয়তাবাদী দর্শনের ভিত্তিতে বিএনপি প্রতিষ্ঠা হয়। জিয়াউর রহমান সৎ ও নিষ্ঠাবান ব্যক্তিদের নিয়ে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে একটি রোল মডেল দাঁড় করান।
১৯৮১ সালের ৩০ মে চট্টগ্রামে এক ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানে জিয়াউর রহমান নিহত হলে দলটি প্রথমবারের মতো নেতৃত্বের সংকটে পড়ে। তৎকালীন উপ-রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবদুস সাত্তার সাময়িক সময়ের জন্য সরকার ও দলের হাল ধরলেও ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ জেনারেল এরশাদের সামরিক অভ্যুত্থানে তিনি ক্ষমতাচ্যুত হন। বিচারপতি সাত্তারের ক্ষমতাচ্যুতির পর বিএনপি প্রকৃত অর্থেই অস্তিত্ব-সংকটের মুখে পড়ে। মওদুদ আহমদসহ বিএনপির অনেক নেতাই জেনারেল এরশাদের সরকারে যোগ দেন। দলের সেই সংকটকালে ১৯৮৩ সালের ২১ ফেব্র“য়ারি বিএনপির হাল ধরেন খালেদা জিয়া। বিএনপির নেতারা বলছেন, জিয়ার উত্তরসূরি হিসেবে খালেদা জিয়াও সমান্তরালভাবে জনপ্রিয়। জেনারেল এরশাদের সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার আপসহীন ভূমিকা দলটিকে ১৯৯১ সালে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করে। এরপর ২০০১ সালে আবারও ক্ষমতায় আসে দলটি।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের ভাষায়, প্রতিষ্ঠার ৩৬ বছরে বিএনপির ওপর একের পর আঘাত এসেছে। এক-এগারোর সময় বিএনপিকে ভাঙার ষড়যন্ত্র হয়েছিল। কিন্তু খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপি ধ্বংসস্তুপ থেকে ফিনিক্স পাখির মতো ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: