শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০৯ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গোটা বিশ্বকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিয়েছে: জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গোটা বিশ্বকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিয়েছে: জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশ

আমার সুরমা ডটকমইমামদের বৃহত্তম অরাজনৈতিক সংগঠন জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশের উদ্যোগে পবিত্র জেরুজালেমকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কর্তৃক অন্যায়ভাবে অবৈধ দখলদার ইসরাঈলের রাজধানী ঘোষনার প্রতিবাদে শুক্রবার বাদ জুমা লালবাগ গৌর শহীদ মাজার চত্তরে আমেরিকান দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচী পূর্ব সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি মাওলানা ক্বারী আবুল হোসাইন। সমাবেশে নেতৃবৃন্দ ট্রাম্পের প্রতি ঘৃণা, তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছেন, ইসলামের তৃতীয় সম্মনিত স্থান পবিত্র নগরী জেরুজালেমকে আধিপত্যবাদী, সা¤্রাজ্যবাদী শক্তি ও যুদ্ধবাজ আমেরিকার উন্মাদ প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বিশ্বসন্ত্রাসী ইসরাঈলের রাজধানী ঘোষণা করে পৃথিবী সকল মুসলমানদের অন্তরে আগুন জ্বাালিয়ে দিয়েছে এবং গোটা বিশ্বকে একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি ও যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিয়েছে।
বক্তারা বলেন, অনতিবিলম্বে ট্রাম্পের এ ঘোষণা প্রত্যাহার করে উত্তপ্ত মুসলিম বিশ্বকে শান্ত করতে হবে। ওআইসির ঘোষণা অনুযায়ী জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানীর স্বীকৃতি দিতে হবে। তা না হলে জাতীয় ইমাম সমাজ বিশ্ব মুসলিম ধর্মীয় নেতা ও ইমাম-খতিবদের নিয়ে বৃহত্তর ঐক্যের মাধ্যমে আমেরিকার সাথে সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্ন ও কূটনৈতিকভাবে বয়কট করতে কঠিন কর্মসূচী দিতে বাধ্য হবে। তখন মুসলমানদের দমন করার শক্তি কারো থাকবে না (ইনশাআল্লাহ)।
সমাবেশে ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব ও হেফাজতের যুগ্ম-মহাসচিব মুফতী ফয়জুল্লাহ বলেন, মুসলিম দেশগুলোর জোট ওআইসি এবং ২০০ কোটি মুসলমানের দাবী মেনে পূর্ব জেরুজালেমকে অবশ্যই ফিলিস্তিনের রাজধানীর স্বীকৃতি দিতে হবে। ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘোষণাকে প্রত্যাখ্যান করে তিনি বলেন, জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে, মুসলমানদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়ে ট্রাম্প প্রশাসন ‘বড় ধরণের অপরাধ’ করেছে। আন্তর্জাতিক আইনের আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন করে মধ্যপ্রাচ্য শান্তি আলোচনায় ওয়াশিংটনের বিশ্বাসযোগ্য মধ্যস্থতাকারী হিসেবে থাকতে পারেনা। মুফতী ফয়জুল্লাহ আরো বলেন, জেরুজালেম ফিলিস্তিনের রাজধানী। এটি সবসময় ফিলিস্তিনেরই রাজধানী থাকবে। শুধু মধ্যপ্রাচ্য নয়, বিশ্ব শান্তির জন্য এটি এখন সময়ের দাবি।
আমেরিকান দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচী পূর্ব সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মুফতী ফয়জুল্লাহ, যুগ্মমহাসচিব মুফতী তৈয়্যব হোসাইন, জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশের সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রিন্সিপাল মাওলানা বেলায়েত হোসাইন আল-ফিরোজী, মহাসচিব মুফতী মিনহাজুদ্দিন, ২৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাসিবুর রহমান মানিক, মাওলানা নুর উদ্দিন লাহুরী, মুফতী সাইফুল ইসলাম, মাওলানা জাফর আহমদ, মাওলানা আনোয়ারুল হক, মুফতী তাসলীম আহমদ, মুফতী রহমতুল্লাহ, মুফতী শামসুল হক, মাওলানা হামিদুল হক, মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মাওলানা যোবায়ের আহমদ কাসেমী, মাওলানা খালেদ মোশারফ, মাওলানা শহীদুল আনোয়ার, মাওলানা এমদাদুল হক সাঈফী, হাজারীবাগ থানা সভাপতি মাওলানা মিজানুর রহমান, চকবাজার থানা সভাপতি মুফতী বশিরুল হাসান, কেরানীগঞ্জ থানা সভাপতি মাওলানা আব্দুল গণি, বংশাল থানা সভাপতি মাওলানা মুসা বিন ইজহার, সেক্রেটারী মাওলানা মীর হেদায়েতুল্লাহ গাজী, লালবাগ থানা সভাপতি মাওলানা আহাম্মদ হোসেন, ধানমন্ডি থানা সভাপতি মাওলানা ইলিয়াছ হামিদী, কামরাঙ্গীর চর থানা সভাপতি মাওলানা ইলিয়াছ মাদারীপুরীসহ পুরান ঢাকার ইমাম-খতীব ও ওলামায়ে কেরাম। সমাবেশ শেষে জাতীয় ইমাম সমাজ নেতৃবৃন্দ বিশাল মিছিল নিয়ে আমেরিকা দূতাবাস অভিমুখে যাত্রা শুরু করলে পলাশী মোড়ে পুলিশ বেরিকেড দিয়ে বাধা প্রদান করে। এ সময় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। নেতাকর্মীরা আমেরিকা ও ইসরাঈলের পতাকায় আগুন দেয় ও ট্রাম্প ও ইসরাঈল বিরোধী শ্লোগান দেয়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সমাবেশ সমাপ্ত করে ইমাম সমাজের তিনজন নেতাকে আমেরিকার দূতাবাসে গিয়ে প্রতিবাদলিপি জমা দেয়ার অনুমতি দেয়া হয়। জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশের সভাপতি মাওলানা ক্বারী আবুল হোসাইন, সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা বেলায়েত হোসাইন আল-ফিরোজী ও মহাসচিব মুফতী মিনহাজুদ্দিন বারিধারায় আমেরিকান দূতাবাসে গিয়ে প্রতিবাদলিপি জমা দেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: