বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩
সুনামগঞ্জের মানুষ হাওরাঞ্চলে সংগ্রাম করে বেঁচে থাকে-জেলা প্রশাসক মোঃ সাবিরুল ইসলাম

সুনামগঞ্জের মানুষ হাওরাঞ্চলে সংগ্রাম করে বেঁচে থাকে-জেলা প্রশাসক মোঃ সাবিরুল ইসলাম

মোঃ মানিক মিয়া, জামালগঞ্জ (সুনামগঞ্জ) সংবাদদাতাসুনামগঞ্জের মানুষ হাওরাঞ্চলে প্রাকৃতি দূর্যোগের সঙ্গে সংগ্রাম করে বেঁচে থাকে। প্রতি বছর এ সংগ্রাম করতে হয়। শুক্রবার বিকেলে জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ হল রুমে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোঃ সাবিরুল ইসলাম একথা বলেন। মতবিনিময় সভায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যান, উপজেলা পর্যায়ে কর্মকর্তা ও সুধিজন নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রসূন কুমার চক্রবতী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সামছুল আলম তালুকদার, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজা আক্তার দিপু, ভাইস চেয়ারম্যান মু. রশিদ আহম্মদ, জামালগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মাদ আলী, ডাঃ মনিসর চৌধুরী, জামালগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ হাবিবুর রহমান, কৃষি কর্মকর্তা ড. সাফায়েত আলম সিদ্দিকী, এলজিডি কর্মকর্তা শিপলু কর্মকার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ডার এডভোকেট আসাদ উল্লাহ সরকার। অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন ফেনারবাক ইউপি চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু তালুকদার, জামালগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান সাজ্জাদ মাহমুদ তালুকদার সাজিব, জামালগঞ্জ উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ রজব আলী, ভীমখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ বাবুল মিয়া। মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন জামালগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিধান ভূষণ চক্রবর্তী, জামালগঞ্জ মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ লুৎফুর রহমান, খাদ্য পরিদর্শক অসীম কুমার তালুকদার, জামালগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি অঞ্জন পুরকায়স্থ, সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি মোঃ ওয়ালী উল্লাহ সরকার প্রমুখ। প্রধান অতিথি মোঃ সাবিরুল ইসলাম বলেন, দূর্যোগের সময়ে প্রশাসনের কাজ করতে হবে এলাকার উন্নয়নের জন্য। জনগণের সেবায় আমরা নিয়োজিত তাই জনগণের পাশে থাকতে হবে। কিছু বাঁধ বরাদ্দের টাকা কিছু সংখ্যক ঘুষ খোর উন্নয়নের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে যার দরুণ অকাল বন্যায় হাজার হাজার কৃষকের অর্জিত ফসল পানির নিচে ডুবে যায়। কৃষি কার্ড যাতে প্রকৃত কৃষক পায় সেই ব্যবস্থা করতে হবে, পাশাপাশি ছোট ছোট জলাশয় উন্মুক্ত করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হবে। কৃষকের মাঝে বিনা সুদে ঋণ দেওয়ার জন্য তিনি সুপারিশ করবেন। নদী খনন যদি ৪০ দিনের কর্মসূচি আনা হয় অনেক উন্নয়ন হবে। এছাড়া তিনি টিআর, কাবিখা, কাবিটা, ভিজিএফ, ভিজিডিসহ সকল বিষয়ে স্বচ্ছতা থাকার জন্য পরামর্শ প্রদান করেন। এক ফসলী সুনামগঞ্জ হাওর এলাকার ডুবে যাওয়ায় তিনি শিক্ষার্থীদের বেতন মওকুফ করার জন্য সুপারিশ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: