রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৫৫ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩
সংবাদ শিরোনাম :
ধর্ষণ: এক নম্বরে দ. আফ্রিকা দুইয়ে সুইডেন তিনে আমেরিকা

ধর্ষণ: এক নম্বরে দ. আফ্রিকা দুইয়ে সুইডেন তিনে আমেরিকা

amarsurma.com

dorson

আমার সুরমা ডটকম ডেক্স : ধর্ষণ এবং নারী নির্যাতন অত্যন্ত নিন্দনীয়। এটা এমন এক অপরাধ, যেখানে নারীদের সম্মানকে চূড়ান্তভাবে পদদলিত করা হয়। শুধু শারীরিক নয়, তাদের অন্তরাত্মা পর্যন্ত এই অপরাধে ব্যথিত হয়। তারপর পরিবার, সমাজ সকলে এমন আচরণ করেন, যেন দোষটা সেই মেয়েটিরই। সমাজের বুকে ধর্ষণ একটা জটিল ব্যাধির আকার নিয়েছে। সে ব্যাধি ধীরে ধীরে ক্যান্সারে পরিণত হচ্ছে। বিশেষত ভারতের নিরিখে দেখলে তা নিয়ে সংশয় থাকার কথা নয়। কিন্তু তথাকথিত তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিতেই ধর্ষণের ঘটনাগুলিকে যেভাবে সমালোচনা করে প্রথম বিশ্বের দেশ, বাস্তবে সে দেশের চিত্রটা ঠিক কেমন? পরিসংখ্যান দেখলে অবাকই হবেন। দেখে নিন ধর্ষণের বিচারে কোন ১০টি দেশ রয়েছে সব থেকে উপরে।

১. দক্ষিণ আফ্রিকা : ধর্ষণে শীর্ষ দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম। দেশটিতে কমবয়সী ও শিশুকন্যারা সবচেয়ে বেশি ধর্ষণের শিকার হন। এছাড়া সেদেশে ধর্ষণের সাজাও খুব কম। ধর্ষণের অপরাধ প্রমাণিত হলে মাত্র ২ বছরের জেল হয়।

২. সুইডেন : দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ইউরোপের দেশ সুইডেন। এ দেশে প্রতি চারজন মহিলার একজন ধর্ষণের শিকার হন। এটাই শেষ নয়, সুইডেনে প্রতিবছর ধর্ষণের ঘটনা অস্বাভাবিক হারে বাড়ছে।

৩. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র : বিশ্বের সবচেয়ে ধনী এবং শক্তিশালী রাষ্ট্র ধর্ষণের বিচারে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। আমেরিকার মতো দেশে ধর্ষণের ঘটনা চিন্তা করার মতোই বিষয়। মার্কিন মুলুকে ৯১ শতাংশ মহিলা ও ৯ শতাংশ পুরুষ ধর্ষণের শিকার হন।

৪. যুক্তরাজ্য : ইংরেজ পরিচালক লেসলি উডউইনের ‘ইন্ডিয়াজ ডটার’ তথ্যচিত্র নিয়ে সারা দেশে বেশ হইচই পড়ে গিয়েছিল। নির্ভয়া কাণ্ড নিয়ে তার তথ্যচিত্র দেশে ব্যানও করা হয়েছিল। কিন্তু লেসলি যে দেশের নাগরিক, সে দেশে ধর্ষণের চিত্রটা কেমন? ধর্ষণের বিচারে যুক্তরাজ্য (ইংল্যান্ড, ওয়েল্স) বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ স্থানে রয়েছে। প্রতিবছর প্রায় ৮৫ হাজার মহিলা ধর্ষণের শিকার হন। আর যৌন হয়রানির শিকার হন প্রায় ৪০ হাজার মহিলা।

৫. ভারত : পঞ্চম স্থানে রয়েছে ভারত। আলাদা করে ব্যাখ্যার প্রয়োজন নেই। এ দেশে মহিলারা কতটা নিরাপদ, তা পরিসংখ্যানের দিকে চোখ রাখলেই পরিষ্কার হয়ে যায়।

৬. জার্মানি : ভারত থেকে জার্মানির একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে গিয়েছিল এক ভারতীয় ছাত্র। ভারত থেকে এসেছিল বলে তাঁকে সেখানে পড়ার অনুমতি দেওয়া হয়নি। এহেন দেশ ধর্ষণের বিচারে ভারতের ঠিক পরেই রয়েছে।পরিসংখ্যান বলছে, ধর্ষণের ঘটনায় এদেশে এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছে ২ লক্ষ ৪০ হাজার মহিলা।

৭. ফ্রান্স : ১৯৮০-র আগে ফ্রান্সে ধর্ষণ কোনো অপরাধ বলেই গণ্য হতো না। বছরে প্রায় ৭৫ হাজারের বেশি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে দেশটিতে। কিন্তু অভিযোগ জমা পড়ে ১০ শতাংশেরও কম।

৮. কানাডা : কানাডায় প্রতিবছর ৪ লক্ষ ৬০ হাজার মানুষ যৌন নির্যাতনের শিকার হন। বেশিরভাগ ঘটনাই ঘটে বাড়ির মধ্যেই। অধিকাংশ ক্ষেত্রে পরিবারের বড়রা ও বন্ধু-বান্ধবরাই যৌন নির্যাতন করে থাকেন।

৯. অস্ট্রেলিয়া : অস্ট্রেলিয়াতে প্রতি বছর গড়ে ৫০ হাজারেরও বেশি মহিলা নির্যাতিতা হন। তবে অভিযোগের নিরিখে তা অনেকটাই কম।

১০. ডেনমার্ক : ডেনমার্কে প্রতিবছর ৫২ শতাংশ মহিলা যৌন নির্যাতন কিংবা ধর্ষণের শিকার হন।

সূত্র : সংবাদ সংস্থা

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: