মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৭:০৩ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩
ফাঁসি কার্যকর করায় ক্ষুব্ধ পাকিস্তান, ঢাকায় পাকিস্তান হাইকমিশনারকে তলব করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

ফাঁসি কার্যকর করায় ক্ষুব্ধ পাকিস্তান, ঢাকায় পাকিস্তান হাইকমিশনারকে তলব করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

151122122849_pakistan_statement_104734downloadআমার সুরমা ডটকম ডেক্স : বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের দায়ে দু’জন বিরোধী নেতার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার কয়েক ঘণ্টা পর পাকিস্তান সরকার গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। ইসলামাবাদে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে আজ রোববার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে পাকিস্তান সরকারের পক্ষ থেকে এই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করা হয়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভের সঙ্গে আমরা লক্ষ্য করেছি যে দুর্ভাগ্যজনকভাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী এবং আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে। এই ঘটনায় পাকিস্তান শঙ্কিত।” পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “১৯৭১ সালের ঘটনার ব্যাপারে বাংলাদেশে যে ত্রুটিপূর্ণ বিচার চলছে সেবিষয়ে আমরা আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়াও লক্ষ্য করেছি।” ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের সঙ্গে বাংলাদেশের যুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে জামায়াতে ইসলামীর নেতা আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ ও বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে মৃত্যুদ- দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। সেই রায় শনিবার মাঝরাতে ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে কার্যকর করা হয়। পাকিস্তান সরকার বলছে, “পাকিস্তান, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ১৯৭৪ সালের ৯ই এপ্রিল যে সমঝোতা হয়েছে সে অনুসারে বাংলাদেশে জাতীয় সমঝোতার প্রয়োজন আছে। এই সমঝোতায় ১৯৭১ সালের ব্যাপারে ভবিষ্যতের দিকে তাকানোর কথা বলা হয়েছে।” পাকিস্তান বলছে, এই সমঝোতার মধ্য দিয়ে সম্প্রীতি আরো বাড়বে। পাকিস্তান সরকার বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়ার সমালোচনা করে আসছে শুরু থেকেই। এর আগেও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেয়া ফাঁসির রায় কার্যকর করার পর পাকিস্তান সরকার তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী এই বিচার প্রক্রিয়ায় তার পক্ষে পাকিস্তান থেকে কয়েকজন সাফাই সাক্ষী নিয়ে আসার জন্যেও আদালতের কাছে আবেদন করেছিলেন। সূত্র: বিবিসি

index_104743এদিকে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার নিয়ে পাকিস্তানের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ার প্রতিবাদে ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির হাইকমিশনার সুজা আলমকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাকে আগামীকাল সোমবার দুপুরে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রসচিব মো. মিজানুর রহমানের সঙ্গে দেখা করতে বলা হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা রোববার সন্ধ্যায় এতথ্য নিশ্চিত করেছেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর নিয়ে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ ব্যাপারে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কাল হাইকমিশনার সুজা আলমের কাছে আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদপত্র দেয়া হবে। ঢাকায় পাকিস্তানের হাইকমিশনের মুখপাত্র আজ সন্ধ্যায় মোবাইলে জানান, হাইকমিশনারকে সোমবার বেলা আড়াইটার দিকে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রসচিবের সঙ্গে দেখা করতে বলা হয়েছে। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কাজী এম খলিলুল্লাহ আজ এক বিবৃতিতে বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানান। পাকিস্তানের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়ায় কাজী এম খলিলুল্লাহ বিবৃতিতে বলেন, আমরা গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভের সঙ্গে বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মুজাহিদের দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যুদণ্ডের ঘটনা লক্ষ্য করেছি। এ ঘটনায় আমরা গভীরভাবে অসন্তুষ্ট। পাকিস্তানের মুখপাত্র বলেন, বাংলাদেশে ১৯৭১ এর ঘটনাবলি নিয়ে ত্রুটিপূর্ণ বিচার প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের যে প্রতিক্রিয়া আমরা লক্ষ্য করছি, তা নিয়ে আগের মতো আবার গুরুত্ব দিচ্ছি। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কাজী এম খলিলুল্লাহ বলেন, ১৯৭৪ সালের ৯ এপ্রিল পাকিস্তান, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তির মূলনীতি অনুসারে বাংলাদেশে আপস-রফা হওয়া উচিত। ওই চুক্তিতে ১৯৭১ প্রশ্নে ভবিষ্যৎমুখী দৃষ্টিভঙ্গির কথা বলা হয়েছে, যা সদিচ্ছা ও সংহতি জোরদার করবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: