শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৪:০২ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক, অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৬২৫-৬২৭৬৪৩

সালিশে ঐতিহাসিক সামাজিক বিরোধ নিষ্পত্তি

এম আবুল হোসেন শরীফ, স্টাফ রিপোর্টার:

সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলাধীন রায়বাঙালি গ্রামে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে গ্রাম্য কোন্দল, প্রভাব বিস্তার, আধিপত্য, সামাজিক বিরোধ সালিশে নিষ্পত্তি প্রচেষ্টার মাধ্যমে পক্ষগণের সম্মতিতে অবশেষে শান্তির সুবাতাস বইছে রায়বাঙালি গ্রামসহ জগদল ইউনিয়নের সর্বত্র।

তথ্য সূত্রে জানা গেছে, রায়বাঙ্গালী গ্রামের এডভোকেট শেখ জাহির আলী ও আবদুল মালিক মিয়ার পক্ষে-বিপক্ষে এক দশকেরও বেশি সময় ধরে আধিপত্য বিস্তার, প্রভাব-প্রতিপত্তি নিয়ে উভয় গ্রুপের মধ্যে হানাহানি সংঘর্ষ দানা বাঁধতে থাকে। শুরু হয়ে যায় গ্রাম্য কোন্দল। গ্রামে গ্রুপিং বেড়ে যায়। গোষ্ঠীগতভাবে একে অন্যের সাথে সহযোগিতায় জড়িয়ে পড়েন। শুরু হয় ভয়ানক পরিস্থিতি।

প্রতি বছর রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন গ্রামের সাধারণ মানুষ জন। সম্প্রীতির বন্ধনে ফাটল ধরতে শুরু করে। গ্রামে বিভাজনের মাত্রা বেড়ে যায়। প্রতিহিংসার ছোবলে গ্রাস করে নেয় শান্তির বার্তা। অশান্তির দাবানল যখন চরম পর্যায়ে মাঝেমধ্যে সালিশ প্রস্তাব আসলেও অযাচিত কারনে ভেস্তে যায়।

গ্রামের মানুষের জীবন হয়ে ওঠে দুর্বিসহ। উদ্বিগ্ন আর উৎকণ্ঠায় চলে জীবনের ডায়েরী। যখন রক্ত প্রতিযোগিতার হোলি খেলায় নিমজ্জিত গ্রামবাসী,তখনই আপোষের ডাক দেন জগদল গ্রামের সালিশ ব্যক্তিত্ব হুমায়ুন রশীদ লাভলু সঙ্গী হিসেবে বেছে নেন রায়বাঙ্গালী গ্রামের সম্মানিত ব্যক্তিত্ব মো. তছর মিয়া প্রমুখদের আন্তরিক প্রচেষ্টারই ফসল। গত ৬ মার্চ শনিবার সমাপ্তি ঘটে দীর্ঘদিনে জট হয়ে থাকা সামাজিক বিরোধ।

সরেজমিনে জানা যায়, জগদল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শিবলি আহমদ বেগের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সালিশি সভায় উপস্থিত ছিলেন দিরাই উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান তালুকদার, দিরাই পৌরসভার সাবেক মেয়র মোশাররফ মিয়া, চিলাউড়া গ্রামের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব বকুল মিয়া, দুর্গাপাশা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জালাল মিয়া, দিরাই উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রঞ্জন কুমারসহ সুনামগঞ্জ জেলার বিশিষ্ট সালিশ ব্যক্তিত্ব। আপোষে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, মরহুম আলিফ মিয়ার উত্তরাধিকারীদেরকে ১০ লক্ষ টাকা এবং মরহুম চমক আলীর উত্তরাধিকারীদরকে ১০ লক্ষ টাকা এবং মামলা-মোকদ্দমা প্রত্যেকে নিজ নিজ খরচে প্রত্যাহার করতে হবে।

সিদ্ধান্ত শোনার পর সব পক্ষগণ খুশি মনে সিদ্ধান্ত মেনে নেন। উপস্থিত উৎসুক জনতা হাততালি দিয়ে স্লোগান দিতে থাকেন অস্ত্র নয়,কলম ধরো। শান্তির পথে, এগিয়ে চলো।

আল্লাহু-আকবার ধ্বনিতে মুখরিত করে তুলেন, রায় বাঙ্গালী গ্রামের বাজারে আয়োজিত সালিশ বৈঠকে উপস্থিত হাজারো জনতা।

মাওলানা ছানুয়ার হোসাইন ইমনের মোনাজাতের মাধ্যমে সালিশি সভার সমাপ্তি ঘটে।

amarsurma.com

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: