শনিবার, ১৫ Jun ২০২৪, ০৩:৪৪ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক: অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৭৯৮-৬৭৬৩০১
সংবাদ শিরোনাম :
দেখার কেউ নেই: সরকারি খাস জায়গা থেকে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন: ভূমি কর্মকর্তার পরিদর্শন

দেখার কেউ নেই: সরকারি খাস জায়গা থেকে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন: ভূমি কর্মকর্তার পরিদর্শন

কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ, স্টাফ রিপোর্টার (সুনামগঞ্জ): সুনামগঞ্জ পৌর শহরের হাছননগর ময়নার পয়েন্ট আবাসিক এলাকায় সরকারি খাস জায়গা থেকে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন করে বিক্রি করছে একটি ভূমি খেকো সিন্ডিকেট চক্র। গত বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় ময়নার পয়েন্ট এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যক্তি সরকারের রাজস্ব আদায়ের স্বার্থে সদর উপজেলা ভূমি কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ সাপেক্ষে ভূমি কর্মকর্তা বিশ^জিৎ দেব দুপুর আড়াইটায় ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা জহুর মিয়াকে ঘটনাস্থলে পাঠান। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ থেকে ১৪ ডিসেম্বর সকাল হতে সন্ধ্যা পর্যন্ত সদর উপজেলার সুলতানপুর মৌজার ১নং খতিয়ানের ২০নং দাগ থেকে প্রায় ৩০ ফুট গর্ত করে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন করে বিক্রি করছেন মৃত আব্দুল মুতলিব ওরফে মবিল মিয়ার ছেলে পলাতক আসামী রমজান আলী। আরেক ভূমি খেকো মাটির ঠিকাদার রেনু মিয়া এই সরকারি ভূমির মাটি অল্প টাকা দিয়ে ক্রয় করে বেশি দামে বিক্রি করছেন শহরের বিভিন্ন পুকুর ভরাটের কাজে। উত্তোলনকৃত মাটির মূল্য প্রায় ৫০ হাজার টাকা হবে।
উল্লেখ্য ২০নং দাগ সংলগ্ন ২৩নং দাগে সরকারি খাজ বোর রকম ভূমি রমজান আলী দয়াল মিয়ার নিকট ৫ শতাংশ, রবির মিয়ার নিকট ৩ শতাংশ, জামাল মিয়ার নিকট ৭ শতাংশ করে এভাবে আরো কয়েকজনের কাছে নগদ টাকার বিনিময়ে বিক্রি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
এ ব্যাপারে ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা জহুর মিয়া জানান, আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম কিন্তু কাউকে পাই নি। গর্ত করে মাটি উত্তোলন করে পারে স্টেক দিয়ে রাখা হয়েছে। আমি রমজান আলীকে মাটি উত্তোলন না করার জন্য নিষেধ করেছি। এ ব্যাপারে সদর উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা বিশ^জিৎ দেব জানান, সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com