মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০১:৩৫ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
প্রতিনিধি আবশ্যক: অনলাইন পত্রিকা আমার সুরমা ডটকমের জন্য প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন : ০১৭১৮-৬৮১২৮১, ০১৭৯৮-৬৭৬৩০১
বিএনপির ৫০২ সদস্যের কমিটি: স্থায়ী কমিটিতে নতুন মুখ আমীর খসরু ও সালাহউদ্দিন আহমেদ : তারুণ্য নির্ভর কমিটিতে নতুন ১১৩

বিএনপির ৫০২ সদস্যের কমিটি: স্থায়ী কমিটিতে নতুন মুখ আমীর খসরু ও সালাহউদ্দিন আহমেদ : তারুণ্য নির্ভর কমিটিতে নতুন ১১৩

salauddinআমার সুরমা ডটকম: দলীয় নেতা-কর্মীই শুধু নয়; দেশবাসীর দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটলো। জাতীয় সম্মেলনের প্রায় ৫ মাস পর গতকাল দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেছে বিএনপি। আগামীর আন্দোলন সংগ্রামের সফলতাকে মাথায় রেখে নতুন কমিটিতে তারুণ্যের প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। ছাত্র ও যুবদলের অনেকের স্থান হয়েছে এই কমিটিতে। তেমনি ত্যাগ-তিতিক্ষার মূল্যায়ন করা হয়েছে নেতা নির্বাচনের বেলায়। নীতিনির্ধারণী ফোরাম ১৯ সদস্যের জাতীয় স্থায়ী কমিটির মধ্যে ১৭ জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে নতুন মুখ হিসেবে এসেছে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সালাহ উদ্দিন আহমেদের নাম। ৫০২ সদস্যের জাতীয় নির্বাহী কমিটির মধ্যে ৪৯৮ জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। সর্বোচ্চ সদস্য নিয়ে ৭৩ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে এই কমিটির ঘোষণা দেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ঘোষিত কমিটি সম্পর্কে মতামত জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, আমার দৃষ্টিতে এটা একটি ভাইব্রেন্ট ও ডাইনামিক কমিটি হয়েছে। দেশের রাজনীতিতে এবং গণতন্ত্র উদ্ধার করতে এই কমিটি ইতিবাচক ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় দলের বিভিন্ন স্তরের নেতারা বলেছেন, কমিটিতে বাস্তবতা ও প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটেছে। তবে দুই/চারজন ক্ষোভও প্রকাশ করেছে। পদত্যাগ করেছেন মোসাদ্দেক আলী ফালু। গত ১৯ মার্চ বিএনপির জাতীয় সম্মেলনে চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের ক্ষমতা দেয় কাউন্সিলররা। এরপর তিন দফায় ৪২ জনের নাম ঘোষণা করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বাকিদের নাম ঘোষণা করেন ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি জানান, খুন শিগগিরই উপ-কমিটি ঘোষণা করা হবে। বেলা ১২টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, প্রায় প্রতিদিনই সংবাদ সম্মেলন হয় কোন না কোন ঘটনাকে কেন্দ্র করে। আজ আমি আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি দেশ-বিদেশে বহুল আলোচিত ও প্রত্যাশিত বিএনপির কমিটি প্রসঙ্গ নিয়ে। বিএনপি চেয়ারপার্সনের নির্দেশিত হয়ে আমি আজ দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করতে যাচ্ছি। এরপর তিনি দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটি ঘোষণা করেন। এরপর উপদেষ্টা পরিষদ এবং কার্যনির্বাহী কমিটি ঘোষণা করেন। এবার চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা পরিষদের কলেবর বাড়ানো হয়েছে। ৩৬ সদস্য থেকে ৭৩ জনে বৃদ্ধি করা হয়েছে। ৩৮৬ সদস্য থেকে ৫০২ সদস্যর পূর্ণাঙ্গ জাতীয় নির্বাহী কমিটির ৪৯৮ জনের নাম জানান ফখরুল ইসলাম। জাতীয় নির্বাহী কমিটিতে নতুন মুখ ১১৩ জন।

স্থায়ী কমিটিতে নতুন দুই মুখ: দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পরিষদ স্থায়ী কমিটির আকার আগের মতই ১৯ জন রয়ে গেছে। আগের কমিটি থেকে তাদের আবেদনের প্রেক্ষিতেই এম শামসুল ইসলাম ও বেগম সরোয়ারী রহমানকে এই কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। তবে সরোয়ারী রহমানকে উপদেষ্টা পরিষদের ১নং সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে। স্থায়ী কমিটিতে চমক হিসেবে যোগ হয়েছে চট্টগ্রামের আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও দেশের রাজনীতিতে বহুল আলোচিত কক্সবাজারের সালাহউদ্দিন আহমেদের নাম। আমীর খসরু বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ছিলেন। আর সালাহউদ্দিন ছিলেন যুগ্ম মহাসচিব। তিনি এখন ভারতের মেঘালয়ের শিলংয়ে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি। সরকারবিরোধী আন্দোলনের এক পর্যায়ে নিখোঁজ হওয়ার বেশ কয়েক মাস পর ২০১৫ সালের ১১ মে তিনি শিলংয়ে পুলিশের কাছে আটক হন। এই কমিটির বাকি অন্য সদস্যরা হলেন-বেগম খালেদা জিয়া (পদাধিকারবলে), তারেক রহমান (পদাধিকারবলে), ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, তরিকুল ইসলাম, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ, এম কে আনোয়ার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর (পদাধিকবারবলে)। তবে স্থায়ী কমিটির ১৭ এবং ১৮ নম্বর পদ এখনো খালি রয়েছে। আগের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের মধ্যে ড. আর এ গনি, খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন ইন্তেকাল করেন। মানবতা বিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসির দ-প্রাপ্ত হন সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী।

চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিল: দলের চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হিসেবে রাখা হয়েছে ৭৩ জনকে। আগের কমিটিতে এই সংখ্যা ছিল ৩৬ জন। উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যরা হলেন-সরোয়ারী রহমান, রিয়াজ রহমান, হারুনার রশীদ খান মুন্নু, মুশফিকুর রহমান, এজে মোহাম্মদ আলী, ফজলুর রহমান পটল, কবির হোসেন, উকিল আব্দুস সাত্তার, লুৎফর রহমান খান আজাদ, আখতার হামিদ সিদ্দিকী, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, এ কে এম মোশাররফ হোসেন, আমানউল্লাহ আমান, মিজানুর রহমান মিনু, মশিউর রহমান, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, গাজী মাজহারুল আনোয়ার, এডভোকেট মাহবুবুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার আনহ আক্তার হোসেইন, অধ্যাপক মাজেদুল ইসলাম, জাফরুল হাসান, জয়নুল আবদীন ফারুক, জয়নাল আবেদীন (ভিপি জয়নাল), মনিরুল হক চৌধুরী, মেজর (অব.) কামরুল ইসলাম, সৈয়দ ওয়াহিদুল আলম, হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, ফজলুল হক আসপিয়া, নুরুল হুদা, সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমী, এ এস এম আব্দুল হালিম, এম এ কাইয়ুম, শহীদুল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, ইসমাইল জবিউল্লাহ, ক্যাপ্টেন (অব.) সুজাউদ্দিন আহমেদ, আব্দুর রশীদ, ব্যারিস্টার হায়দার আলী, ব্যারিস্টার জিয়াউর রহমান খান, অধ্যাপিকা তাজমেরী এস এ ইসলাম, অধ্যাপিকা সাহিদা রফিক, এডভোকেট রেজ্জাক খান, রোজী কবির, গোলাম আকবর খন্দকার, কাজী আসাদ, কবির মুরাদ, অধ্যাপক শাহজাহান মিয়া, একরামুজ্জামান, ফজলুর রহমান, হাবিবুর রহমান হাবিব, আতাউর রহমান ঢালী, নাজমুল হক নান্নু, তাহমিনা রুশদীর লুনা (নিখোঁজ নেতা ইলিয়াস আলীর স্ত্রী), ড. ইনামুল হক চৌধুরী, ডা. সিরাজুল ইসলাম, অধ্যাপক সুকোমল বড়ুয়া, বিজন কান্তি সরকার, সঞ্জীব চৌধুরী, আব্দুুল হক, এডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার, এডভোকেট আফজাল এইচ খান, এডভোকেট কামরুল মুনির, এডভোকেট বোরহান উদ্দিন, অধ্যাপক আব্দুল বায়েছ ভুঁইয়া, আফরোজা খান রীতা, আব্দুস সালাম (ঢাকা মহানগর), মইনুল ইসলাম শান্ত, মো. শাহজাদা মিয়া, এসএস ফজলুল হক, কর্নেল (অব.) এম এ লতিফ, ডা. মো. আব্দুুল কুদ্দুস, সৈয়দ আলমগীর হোসেন এমবিএ ও আমিনুল হক এফসিএ।

জাতীয় নির্বাহী কমিটি: বিএনপি ৫০২ সদস্যের কার্য নির্বাহী কমিটিতে রয়েছেন চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান : বিচারপতি টি এইচ খান, এম মোর্শেদ খান, হারুন আল রশিদ, শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, আব্দুল্লাহ আল নোমান, সাদেক হোসেন খোকা, মিসেস রাবেয়া চৌধুরী, অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, আব্দুল মান্নান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন, সেলিমা রহমান, বরকত উল্লাহ বুলু, মোহাম্মদ শাহজাহান খান, মীর নাছির, শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ, আব্দুস সালাম পিন্টু, খন্দকার মাহবুব হোসেন, মোসাদ্দেক আলী ফালু, ড. ওসমান ফারুক, মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, মেজর জেনারেল (অব.) মাহমুদুল হাসান, এনাম আহমেদ চৌধুরী, ব্যারিস্টার আমিনুল হক, আব্দুল আওয়াল মিন্টু, অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ, শামসুজ্জামান দুদু, এ আহমেদ আজম খান, জয়নাল আবেদিন, নিতাই রায় চৌধুরী, গিয়াস কাদের চৌধুরী, শওকত মাহমুদ। মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব (দপ্তরের দায়িত্বে) রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মজিবর রহমান সরোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, হারুন অর রশীদ, আসলাম চৌধুরী। কোষাধ্যক্ষ মিজানুর রহমান সিনহা, সাংগঠনিক সম্পাদক (ঢাকা), ফজলুল হক মিলন, মাহবুবুর রহমান শামীম (চট্টগ্রাম), রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু (রাজশাহী), নজরুল ইসলাম মঞ্জু (খুলনা), আসাদুল হাবিব দুলু (রংপুর), ডা. শাখাওয়াত হোসেন জীবন (সিলেট), কর্নেল (অব.) আনোয়ারুল আজীম (কুমিল্লা), এমরাহ সালেহ প্রিন্স (ময়মনসিংহ), বিলকিস জাহান শিরিন (বরিশাল), শ্যামা ওবায়েদ (ফরিদপুর)। সম্পাদক বিশেষ দায়িত্বে ড. আসাদুজ্জামান রিপন, আবু নাসের মো. ইয়াহিয়া, প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, আন্তর্জাতিক সম্পাদক এহসানুল হক মিলন, মাহিদুর রহমান, ব্যারিস্টার নাসির উদ্দিন অসীম, ব্যারিস্টার নওশাদ জমির, এডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার। এছাড়াও আন্তর্জাতিক সম্পাদকের দুটি পদ খালি রাখা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা সম্পাদক কর্নেল (অব.) জয়নাল আবেদিন, আইন সম্পাদক ছানাউল্লাহ মিয়া, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, শিক্ষা সম্পাদক প্রফেসর ড. ওবাইদুর রহমান, সমাজকল্যাণ কামরুজ্জামান রতন, কর্মসংস্থান সম্পাদক জাকারিয়া তাহের সুমন। যুব বিষয়ক সম্পাদকের পদটি ফাঁকা রাখা হয়েছে। স্থানীয় সরকার সম্পাদক অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন, শিল্প বিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম (চৈতি কামাল), বাণিজ্য সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমেদ, অর্থনৈতিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়র খালেদ মাহবুব শ্যামল, ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক হাজী ইয়াসিন আলী, গবেষণা সম্পাদক আবু সাঈদ খান খোকন, তথ্য বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, জলবায়ু পরিবর্তন প্রফেসর ওয়াহিদুজ্জামান, ব্যাংকিং ও রাজস্ব সম্পাদক লায়ন হারুনুর রশিদ, ক্রীড়া সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আশরাফ হোসেন উজ্জল, মহিলা সম্পাদক নূর-এ আরা সাফা, প্রশিক্ষণ সম্পাদক এ বি এম মোশারফ হোসেন ও রাশেদা বেগম হীরা। ছাত্র বিষয়ক সম্পাদকের পদটি ফাঁকা রাখা হয়েছে। শ্রমিক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন (চট্টগ্রাম), কৃষি সম্পাদক শামসুজ্জোহা খাঁন, স্বেচ্ছাসেবক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, গণশিক্ষায় অধ্যক্ষ সেলিম ভূইয়া, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক বদরুজ্জামান খসরু, প্রান্তিক জনশক্তি সম্পাদক আব্দুল মালেক, বন ও পরিবেশ সম্পাদক মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা. ফাওয়াজ হোসেন শুভ, পরিবার কল্যাণ সম্পাদক ডা. মহসিন, সমবায় সম্পাদক গউছ, পল্লী উন্নয়ন সম্পাদক গৌতম চক্রবর্তী, ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সম্পাদক মোজাফফর হোসেন (রংপুর), গ্রাম সরকার সম্পাদক আনিসুজ্জামান বাবু (গাইবান্ধা), প্রকাশনা সম্পাদক হাবিবুল ইসলাম হাবিব, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, তাঁতী বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন ইসলাম খান, শিশু সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, প্রবাসী কল্যাণ সম্পাদক ফরিদ হোসেন মানিক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার রিয়াজুল ইসলাম রিজু, তথ্য প্রযুক্তি সম্পাদক শরীফ শাহ কামাল তাজ, মানবাধিকার সম্পাদক এডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ, ক্ষুদ্র ঋণ সম্পাদক এম এ কাইয়ুম, উপজাতি সম্পাদক ম্যা-মা-চিং, মৎস্যজীবী বিষয়ক সম্পাদক লুৎফুর রহমান কাজল। উপ-কোষাধ্যক্ষ মাহমুদ হাসান বাবু। সহ সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আব্দুস সালাম (ঢাকা), শহীদুল ইসলাম বাবুল (ঢাকা), আলাল মজুমদার (চট্টগ্রাম), হারুনুর রশিদ হারুন (চট্টগ্রাম), আব্দুল মমিন তালুকদার খোকা (রাজশাহী), শাহীন শওকত (রাজশাহী), আনিন্দ ইসলাম অমিত (খুলনা), জয়ন্ত কুমার কুন্ডু (খুলনা), শামসুজ্জামান (রংপুর), জাহাঙ্গীর হোসেন (রংপুর), দিলদার হোসেন সেলিম (সিলেট), কলিম উদ্দিন মিলন (সিলেট), আকন কুদ্দুসুর রহমান (বরিশাল), মাহবুবুল হক নান্নু (বরিশাল), মোস্তাক মিয়া (কুমিল্লা), আব্দুল আউয়াল খান (কুমিল্লা), ওয়ারেছ আলী মামুন (ময়মনসিংহ), শরীফুল আলম (ময়মনসিংহ), মাশকুর রহমান মাশুক (ফরিদপুর), সেলিমুজ্জামান সেলিম (ফরিদপুর)। সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, মুনির হোসেন, বেলাল হোসেন, সহ-প্রচার আমিরুল ইসলাম আলিম, আসাদুল কারিম শাহিন, শামীমুর রহমান শামীম। সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির, নজরুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, ফাহিমা মুন্নী, ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা, বেবি নাজনীন, শাকিরুল ইসলাম শাকিল, সহ-মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ একরামুল হক, সহ-আইন সম্পাদক এডভোকেট খোরশেদ আলম, এডভোকেট ইকবাল হোসেন, জাকির হোসেন, এডভোকেট জয়নাল আবেদিন মেসবাহ, সহ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক হেলেন জেরিন খান, ফরিদা মনি শহিদুল্লাহ, সহঅর্থনৈতিক শাহাবুদ্দিন (মেডিকেল কলেজ), সহ-সমাজকল্যাণ শাহাবুদ্দিন সাবু (লক্ষীপুর), আবুল বাশার, সহ কর্মসংস্থান আব্দুল ওয়াদুদ ভূঁইয়া, সহ ক্রীড়া আরিফুল হক প্রিন্স, সহ সাংস্কৃতিতে মুনির খান, সহ যুববিষয়ক সম্পাদক মীর নেওয়াজ আলী, সহ-প্রান্তিক ও জনশক্তি উন্নয়নে অপর্ণা রায়, সহ ব্যাংকিং ও রাজস্ব সম্পাদক খন্দকার মোক্তাদির (সিলেট), সহ-মহিলা সম্পাদক আফরোজা আব্বাস, সুলতানা আহমেদ, সহ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক দীপেন দেওয়ান, জন গোমেজ, অমলেন্দু অপু, আব্দুল বারী ড্যানী, সহ-ছাত্র বিষয়ক সম্পাদকের পদটি খালি রয়েছে। সহ-শ্রমিক সম্পাদক হুমায়ুন কবির খান, ফিরোজ (বিমান), সহ-কৃষিতে চৌধুরী আব্দুল্লাহ ফারুক, সহ সমবায়ে নাজমুল হক সনি, সহ শিল্প বাণিজ্যে আশরাফ উদ্দিন নিজাম, হাজী আমিনুল ইসলাম, সহ পল্লী উন্নয়নে মোজাহের আলী প্রধান, সহ-স্বেচ্ছাসেবক সম্পাদক শামসুজ্জামান, সহ ত্রাণ ও পুনর্বাসনে শফিকুল ইসলাম মিলন ও নেওয়াজ হালিমা আরলি, সহ-প্রকাশনায় শাকিল ওয়াহেদ সুমন, সহ তথ্য ও গবেষণায় রিয়াজ উদ্দিন নুসু, কাদের গনি চৌধুরী ও আমিরুজ্জামান খান শিমুল, সহ-গ্রাম সরকার বিষয়ক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শিশির, আমজাদ হোসেন (সৈয়দপুর), সহ স্থানীয় সরকার সম্পাদক শাম্মী আক্তার, সহ জলবায়ু পরিবর্তন সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বাবলু, সহ প্রশিক্ষণ সম্পাদক প্রফেসর ড. মোর্শেদ হাসান খান, ব্যারিস্টার বদরুজ্জামান বাদল, রেহেনা আক্তার রানু, সহ গণশিক্ষায় আনিসুজ্জামান খোকন, সহ বন ও পরিবেশে রওনাকুল ইসলাম টিপু, সহ স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক নিলুফার চৌধুরী মনি, সহ-তাঁতী বিষয়ক সম্পাদক রাবেয়া সিরাজ, সহ-স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ফরহাদ হোসেন ডোনার, এস এম রফিকুল ইসলাম (বাচ্চু), ডা. রফিকুল ইসলাম (ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল), সহ-নার্সেস ও স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক মিসেস জাহানারা বেগম, সহ-পরিবার কল্যাণে ডা. রফিকুল কবির লাবু, ডা. দেওয়ান সালাউদ্দিন (বাবু), সহ-প্রবাসী বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার আব্দুস সালাম (ইউকে), সহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে ইঞ্জিনিয়ার আফজাল হোসেন সবুজ, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ উদ্দিন বকুল, সহ তথ্য প্রযুক্তি ইঞ্জিনিয়ার এস এম গালিব, ইঞ্জিনিয়ার খালেদ হোসেন চৌধুরী পাহিন, সহ-মানবাধিকার সম্পাদক আশিফা আশরাফি পাপিয়া, সহ-ক্ষুদ্র ঋণ বিষয়ক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক (সিলেট) এবং সহ-উপজাতি বিষয়ক সম্পাদক কর্নেল (অব.) মনিষ দেওয়ান।

জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য (পুরাতন): মোজাহার হোসেন, জেড. এম. মর্তুজা চৌধুরী তুলা, রেজওয়ানুল হক, আখতারুজ্জামান, মিসেস রেজিনা ইসলাম, মিসেস বিলকিস ইসলাম, নূর মোহাম্মদ মন্ডল, মিসেস সাঈদা রহমান জোৎস্না, তাসভিরুল ইসলাম, সাইফুর রহমান রানা, মিসেস রওশন আরা ফরিদ, ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোস্তাফ, সাইফুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম, মাহবুবুর রহমান হারিছ, মিসেস লাভলী রহমান, আল আজগর হেনা, আব্দুল মান্নান, শামসুল আলম প্রামাণিক, রফিকুল ইসলাম দুলাল, মতিয়ার রহমান মন্টু, মিসেস কাজী হেনা, আবু সাঈদ চাঁদ, প্রফেসর কাজী গোলাম মোর্শেদ, আকবর আলী, কামরুদ্দিন ইয়াহিয়া খান মজলিশ, মেজর (অব.) মনজুর কাদের, মেজর (অব.) হানিফ, সেলিম রেজা হাবিব, সিরাজ সরদার, হাবিবুর রহমান তোতা, এনআই খান, ফকির মাহবুব আনাম স্বপন, লুৎফর মতিন, এডভোকেট খালেদা পান্না, এডভোকেট খন্দকার আহসান হাবিব, সাঈদ সোহরাব, সিরাজুল হক, রশিদুজ্জামান মিল্লাত, সুলতান মাহমুদ, বাবু, শাহিদা আখতার রিতা, মাহমুদুল হক রুবেল, খুররাম খান চৌধুরী, শাহ শহীদ সরওয়ার, ইঞ্জিনিয়ার মো. শামসুদ্দিন, মিসেস নূরজাহান ইয়াসমিন, ইঞ্জিনিয়ার ইকবাল হোসেন, ডা. মাহবুবুর রহমান লিটন, রফিকুল ইসলাম হিলালী, এডভোকেট খোরশেদ আলম মিয়া, মিসেস লায়লা বেগম, এডভোকেট খন্দকার আব্দুল হামিদ, বাবুল আহমেদ, মিসেস রহিমা সিকদার, এস, এ খালেক, আহমেদ ইকবাল হাসান, ইসমাঈল হোসেন, বেঙ্গল, মুন্সী বজলুল বাসিত আনজু, মকবুল হোসেন, জসিমুদ্দিন মাহমুদ, মিসেস লিটা বশির, মিসেস মেহেরুন্নেছা হক, বেগম রাজিয়া আলিম, এম.এ মজিদ, খুরশিদ আল মোল্লা, তমিজ উদ্দিন, মেজর (অব.) মিজানুর রহমান, খন্দকার আবু আশফাক, মিসেস শাহিনা খান, হাসান উদ্দিন সরকার, কাজী সাঈদুল আলম বাবুল, মজিবুর রহমান, মিয়া মো. সেলিম, মিসেস খালেদা ইয়াসমিন, ফেরদৌস আহমেদ খোকন, প্রফেসর রেজাউল করিম, কাজী মনিরুজ্জামান মনির, শাহ আলম, এডভোকেট আবুল কালাম, আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়াম, নাসিরুদ্দিন সাবু, শাহ মো. আবু জাফর, শেখ আলী আশরাফ, আবুল হোসেন, মিসেস ইয়াসমিন আরা হক, সৈয়দ মোদাররেস আলী ইসা, সরওয়ার আজম খান, কাজী হুমায়ুন কবির, জামাল শরীফ হিরু, শফিকুর রহমান কিরণ, কাজী আনোয়ার হোসাইন, আব্দুল খালেক, তকদির হোসেন মো. জসিম, রফিক শিকদার, মঞ্জুরুল আহসান মুন্সি, এডভোকেট ফেরদৌস ওয়াহিদা, মনিরুল হক সাক্কু, সৈয়দ জাহাঙ্গীর হোসেন, জি.এম ফজলুল হক, ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক, শফিক আহমেদ ভূঁইয়া, মো. জালাল উদ্দিন, মোতাহের হোসেন পাটোয়ারী, এস.এম কামাল উদ্দিন চৌধুরী, মোস্তফা খান সফরী, আবুল কাশেম চৌধুরী, শাহানা আখতার সানু, জিয়াউদ্দিন মিষ্টার, এডভোকেট মেসবাহউদ্দিন খান, আব্দুল লতিফ জনি, গোলাম হায়দার বি.এস.সি, এডভোকেট আব্দুর রহিম, কাজী মফিজুর রহমান, সাইমুম বেগম, ফোরকান-ই-আলম, শফিউল বারী বাবু, সরওয়ার জামাল নিজাম, গাজী শাহজাহান জুয়েল, মোস্তফা কামাল পাশা, এম. শামসুল আলম, কামাল উদ্দিন চৌধুরী, বিচারপতি ফয়সল মাহমুদ ফায়েজি, আনোয়ার হোসাইন, মিসেস হাসিনা আহমেদ, আলমগীর মাহফুজ উল্লাহ ফরিদ, সমিরণ দেওয়ান, রবীন্দ্র লাল চাকমা, শা চিং প্রু জেরী, নাসিরুদ্দিন চৌধুরী, মিজানুর রহমান, শফি আহমেদ চৌধুরী, আরিফুল হক চৌধুরী, ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, আবুল কাহের শামীম, মিসেস খালেদা রব্বানী, নাসের রহমান, এবাদুর রহমান চৌধুরী, শেখ সুজাত মিয়া, মাসুদ অরুন, অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম, রেজা আহমেদ বাচ্চু মোল্লা, ওহিদুল ইসলাম বিশ্বাস, শহীদুজ্জামান বেল্টু, আব্দুল ওয়াহাব, সাহানা রহমান রানী, কাজী মনিরুল হুদা, টি.এস আইয়ুব, আবুল হোসেন আজাদ, মতিয়ার রহমান ফরাজি, মিসেস চমন আরা, কাজী সলিমুল হক, বিশ্বাস জাহাঙ্গীর আলম, শেখ মজিবুর রহমান, এডভোকেট ওয়াহিদুজ্জামান দীপু, আলী আজগর লবি, মিসেস নার্গিস আলী, ডা. মামুন রহমান এফ সি এ, শরফুজ্জামান মুর্তজা, এডভোকেট শফিকুল আলম মনা, কাজী সেকেন্দার আলী ডালিম, মনিরুজ্জামান মনি, আলাউদ্দিন আহমেদ, ডা. শহিদুল ইসলাম, মতিয়ার রহমান তালুকদার, নজরুল ইসলাম মোল্লা, ইঞ্জিনিয়ার ফারুক আহমেদ তালুকদার, শাহ মো. নেছারুল হক, নাজিম উদ্দিন আলম, হাফিজ ইব্রাহিম, মোশারফ হোসেন মঙ্গু, আবুল হোসেইন খান, মেসবাহউদ্দিন, সরফুদ্দিন আহমেদ সান্টু, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস ছোবহান, এডভোকেট আজিজুল হক আক্কাস, মিসেস জিবা খান, গাজী নুরুজ্জামান (বাবুল গাজী), আলমগীর হোসাইন, রফিকুল ইসলাম মাহতাব।

জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য (নতুন): মোজাম্মেল হোসেন, আব্দুল হামিদ, মামুন হাসান, মীর রবিউল ইসলাম লাভলু, খান রবিউল ইসলাম রবি, মাহবুবল ইসলাম মাহবুব, শামসুজ্জামান সুরুজ, কাজী রফিক, আব্দুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, হাবিবুর রশিদ হাবিব, রাজিব আহসান, আকরামুল হাসান, মামুনুর রশিদ, হাসান মামুন, নুরুল ইসলাম নয়ন, হায়দার আলী লেলিন, বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ, শেখ মো. শামীম, আব্দুল মতিন, ওমর ফারুক শাফিন, দুলাল হোসেন, আবু বকর সিদ্দিক, শামসুজ্জামান মেহেদী, ওবাইদুল হক নাসির, একরামুল হক বিপ্লব, রফিকুল ইসলাম রাসেল, আবু সাঈদ, নাসিম আলী, সাইফুল ইসলাম পটু, আধ্যাপক আমিনুল ইসলাম,আবু তালেব, আলমগীর হোসেন, আবু নাসের রহমতুল্লাহ, ড. খন্দকার মারুফ হোসেন, শেখ রবিউল ইসলাম, নাছিমা আক্তার কল্পনা, এস এম শফিউজ্জামান খোকন, মো. শুকরানা, জয়নাল আবেদিন চাঁন, এডভোকেট সাবেরুল ইসলাম সাবু, মিসেস সাবেরা সুলতানা, ফিরোজা বুলবুল কলি, ফাহিম চৌধুরী, এডভোকেট রিনা পারভিন, আয়েশা সিদ্দিকা মানি, নুর জাহান মাহবুব, পিয়ারা মোস্তফা, ফরিদা ইয়াসমিন, এডভোকেট সিমকি ইসলাম, এডভোকেট আরিফা জেসমিন, এডভোকেট মুন্নি, রুখসানা খানম মীতু, সেলিনা রউফ চৌধুরী, এলিজা জামান, মুক্তিযোদ্ধা মো. মাহফুজুল ইসলাম, সাবেরা আলাউদ্দিন হেনা, ব্যারিষ্টার রাগিব রউফ চৌধুরী, ব্যারিষ্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, এডভোকেট কামরুল ইসলাম সজল, ব্যারিষ্টার ফকরুল ইসলাম, ব্যারিষ্টার মীর হেলাল, এডভোকেট জিয়াউদ্দিন জিয়া, এডভোকেট মোহাম্মদ আলী, এডভোকেট তৌহিদুর রহমান তৌহিদ, মোশারফ হোসেন, এম এ মুকিত, আব্দুর রহমান, মোকশেদ আল মঙ্গোলিয়া, আবুল হোসেন, কৃষিবিদ হাসান জাকির তুহিন, রিজিয়া ইসলাম, হেলাল খান, সালাউদ্দিন ভূঁইয়া শিশির, মীর্জা ফয়সাল আলীম, লুৎফুজ্জামান বাবর, নুর মোহাম্মদ খান, এস এ জিন্নাহ কবির, শেখ মজিবুর রহমান ইকবাল, ডা. মাজহারুল ইসলাম দোলন, জহুরুল ইসলাম বাবু, একে এম আনোয়ারুল ইসলাম, মোকলেসুর রহমান বাবলু, মোকাদ্দেস আলী, সাইদুর রহমান, বাচ্চু, ফয়সাল আলীম, ওবাইদুল হক চন্দন, নাদিম মোস্তফা, শাহরিন ইসলাম তুহিন, এডভোকেট মিজানুর রহমান চৌধুরী, এডভোকেট রাজিব হাসান প্রধান, ফরহাদ হোসেন আজাদ, গিয়াস উদ্দিন, দিপু ভুঁইয়া, আব্দুল মান্নান, ইকবাল হোসেন, ডা. মাজহারুল আলম, মীর্জা খোকন, রমেশ চন্দ্র, দেবাশীস রায় মধু, উদয় কুমার বড়ুয়া, সুশীল বড়ুয়া, নিপুন রায় চৌধুরী, তাবিথ আওয়াল, হুম্মাম কাদের চৌধুরী, ডা. শাহিদ হাসান, আনোয়ার হোসেন বুলু, মিসেস রাবেয়া আলী, নাজিম উদ্দিন মাস্টার, মিসেস আওরঙ্গ, আব্দুল মতিন, এডভোকেট এ বি এম জাকারিয়া, মশিউর রহমান বিপ্লব ও সাইফুল ইসলাম মার্শাল। সূত্রদৈনিক ইনকিলাব

নিউজটি শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017-2019 AmarSurma.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com